সেলিম আহমেদকে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক দেখতে চায় নেতাকর্মীরা


স্টাফ রিপোর্টার ঃ
তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামলীগের সম্মেলনকে ঘিরে চলছে জল্পনা-কল্পনা। কমিটি গঠনের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে আলোচনা-সমালোচনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বইছে ঝড়। তৃনমূলের নেতাকর্মীদের মুখে সাধারণ সম্পাদক পদে দাবী উঠছে জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি ও তরুন জননেতা সেলিম আহমেদের নাম। উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে সেলিম আহমদ জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি হলেও তাহিরপুর উপজেলার নেতাকর্মীদের দুর্দিনে ডাকলেই কাছে পাওয়া যায়। রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে সবসময় অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ৭৫ পরবর্তী নির্যাতিত এ পরিবারের সন্তান হিসেবে সেলিম আহমেদকে সাধারন সম্পাদক করা হলে দল অনেক দূর এগিয়ে যাবে। উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রলীগনেতা, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ শফিকুল ইসলাম বলেন, সেলিম আহমেদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। তাদের পরিবার বংশগত ভাবেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। বাদাঘাট ইউপি আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্বা আব্দুস শহিদ বলেন, জেলায় যারা থাকেন তারা তৃনমূলের খুব একটা খবর নেন না। কিন্তু সেলিম আহমেদ সেই ছাত্র রাজনীতি থেকেই উপজেলার তৃনমূলের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রেখে চলছেন। তার মতো কর্মীবান্ধব নেতাকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত করা সময়ের দাবী। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তারা মিয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সদস্য রফিকুল ইসলাম, দক্ষিণ শ্রীপুর ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুক আহমদ, সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক ইমরান হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক রমেন্দ্র নারায়ন বৈশাখ, ছাত্রলীগের তাহিরপুর উপজেলার সাধারন সম্পাদক সাইফুর রহমানসহ বেশ কিছু নেতাকর্মীদের সাথে কথা হয়। তাদের দাবী, দেশ এখন তরুনদের হাত ধরেই এগিয়ে যাচ্ছে। এখন তৃনমূলের নেতৃত্বে তরুনদের বেশি প্রয়োজন। সেলিম আহমদ সেই তারুন্যের প্রতিক। এছাড়া তিনি কর্মীদের আগলে রেখে মন জয় করার যোগ্যতা রয়েছে। আমরা তাকে আগামী সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হিসেবে দেখতে চাই। সেলিম আহমদ বলেন, আমার পরিবার ৭৫ পরবর্তী নির্যাতিত পরিবার। সাবেক এমপি আব্দুজ জহুরের সাথে আমার বাবা জেল খেটেছেন। পারিবারিকভাবে আওয়ামীলীগ পরিবার আমরা। আমি ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কার্যকরী কমিটির সদস্য ছিলাম। বর্তমানে জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি’র দায়িত্ব পালন করছি। নেতাকর্মীরা চাইলে আমি তাহিরপুর উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হতে ইচ্ছুক। এবং সংগঠনকে গতিশীল করার জন্য আমার তারুন্যের শক্তি ব্যয় করবো ইনশাআল্লাহ।