মাদ্রাসা ছাত্রকে হাত- পা বেঁধে নির্যাতন, আটক ২ শিক্ষক


স্টাফ রিপোর্টার::
মাদ্রাসা ছাত্রকে হাত পা বেধেঁ শারিরীক নির্যাতন করে গুরুতর আহত করেছে মাদ্রাসা শিক্ষক। বুধবার রাত সাড়ে ৮ টায় সুনামগঞ্জ পৌরসভার মোহাম্মদপুর মারিফুল কোরআন ওয়াসুন্নাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় এই শারিরীক নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের স্বীকার মাদ্রাসা ছাত্র মোঃ নাফিস জামান সানি(১৬)। সে জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালি ইউনিয়নের কালিপুর(বিসনা) গ্রামের নুরুজ্জামান চৌধুরীর ছেলে। এদিকে নির্যাতনের অভিযোগে ২ শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। আটকৃতরা হলো মাদ্রাসা শিক্ষক নবির হোসেন ও শাহেব আলী। জানা যায়, ৩ মাস যাবত মাদ্রাসায় হিফজ করার জন্য ভর্তি হয়। প্রতিদিনের ন্যায় বুধবার রাত সাড়ে ৮ টায় মাদ্রাসা হোষ্টেলে কোরআন হিফজ করার সময় নামাজের সময় নিয়ে মাদ্রাসা সুপার হাসান আহমদ দুলালের কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে নাফিস জামান সানির উপর মাদ্রাসা শিক্ষক হাসান আহমদ দুলাল ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলে মাদ্রাসার আরো ২ শিক্ষকসহ তাকে হাত পা বেঁধে ঘন্টাব্যাপী নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনের খবর পেয়ে তার মা ও বোন গুরুত্বর রক্তাক্ত অবস্থায় মাদ্রাসা থেকে উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে সদর হাসপাতালে সার্জারী বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানায় নির্যাতনের স্বীকার মাদ্রাসা ছাত্র নাফিস জামান সানির পিতা নুরুজ্জামান চৌধুরী বাদি হয়ে প্রাথমিক অভিযোগ দিয়েছেন। এদিকে সুনামগঞ্জ সদর থানা ওসি প্রাথমিক অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল ঐ মাদ্রাসা পরিদর্শন করে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মাদ্রাসা ছাত্রদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ঘটনায় জড়িত ঐ মাদ্রাসার ২ শিক্ষক কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।