খালেদা জিয়া ছাতক-দোয়ারাবাজারবাসীকে বোকা বানাতে চেয়েছিলেন -এমপি মানিক


দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি:
ছাতক-দোয়ারাবাজার আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা পর ছাতক-দোয়ারাবাজারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বন্ধ হয়ে যায়। ৭৫ এর পর থেকে ৯৬ সাল পর্যন্ত এলাকায় কোন উন্নয়ন হয়নি। বেগম খালেদা জিয়া ছাতকের সুরমা নদীতে দুই পাড়ে দুটি খাম্বা স্থাপন করে সেতু নির্মাণের নাটক করেছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার। কিন্তু ছাতক-দোয়ারাবাজারবাসীকে ধোকা দিয়ে তিনি ভোটের রাজনীতি করেছেন। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে সেতুর ডিজাইন পরিবর্তন করে সেতুর কাজ শুরু করে। আগামী ফেব্রুয়ারীর মধ্যে সেতুর কাজ স¤পন্ন হবে এবং জুন মাসে সেতু উদ্বোধন করা হবে। এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর ছাতক-দোয়ারাবাজারে মেগা প্রকল্প গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যে ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরী আধুনিকায়নে ৮শ কোটি টাকার মেগা প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরীকে আধুনিকায়ন করে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানো হবে। বহুজাতিক কো¤পানির সাথে পাল্লা দিয়ে ব্যবসা করবে। দোয়ারাবাজার উপজেলার বিস্তৃর্ণ এলাকার নদী ভাঙনরোধে ১৯১ কোটি ৬৭ লাখ টাকা ব্যায়ে সাড়ে তিনকিলোমিটার নদীর তীর সংরক্ষণের কাজ শুরু হয়েছে। ২০২৩ সাল নাগাদ এই কাজ স¤পন্ন হবে। এছাড়া সুরমা নদীর ১৮ কিলোমিটার নদীর ড্রেজিং এর কাজ চলমান রয়েছে। তিনি আরও বলেন, ছাতক-দোয়ারাবাজারে ১১১ কোটি ব্যায়ে ১১টি সেতু নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে দোয়ারাবাজার উপজেলায় উচ্চ শিক্ষার জন্য মাত্র ১৬টি হাইস্কুল ছিল। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসে আরও ৫০টি হাইস্কুল স্থাপন করেছে। এই সরকারের আমলেই দুই উপজেলায় ১৯টি কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। গত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে। চারদলীয় জোট সরকার বাংলাদেশের অন্যতম গ্যাস ক্ষেত্র টেংরাটিলা গ্যাসফিল্ড অদক্ষ কো¤পানি নাইকোকে দিয়ে গ্যাস কূপ খনন করায় পর পর দুই বার অগ্নিকান্ডে হাজার হাজার কোটি টাকার গ্যাস বিনষ্ট হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তিরা ক্ষমতায় থাকাকালীন মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত বাঁশতলা-হকনগর এলাকাকে আড়াল করে রেখেছিল। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসে মুক্তিযুদ্ধের উপত্যকা হকনগরে দৃষ্টিনন্দন স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করেছে। আগামীতে উন্নয়ন চাইলে উন্নয়নের স্বার্থে জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকা মার্কাকে অকুণ্ঠ চিত্তে সমর্থন জানাতে হবে। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রার্থীদের বিজয়ী করতে হবে। কোন অপশক্তির কথায় বিভ্রান্ত হওয়া যাবেনা। মঙ্গলবার বিকালে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ চত্বরে পাউবো আয়োজিত পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী শামসুদ্দোহার সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আবুল মিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এসব কথা বলেন । বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (উত্তর-পূর্বাঞ্চল) এসএম শহিদুল ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খুশি মোহন সরকার, দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা: আবদুর রহীম,উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা, উপজেলা আ.লীগের যুগ্ম আহবায়ক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হাজী আবদুল খালেক, লক্ষ্মীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমীরুল হক, ছাতক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু শাহাদাত লাহিন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও বাংলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান জসিম মাস্টার, দোহালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আনোয়ার মিয়ান আনু, ছাতক উপজেলা আ.লীগ নেতা রেজাউল করীম রাজু, দোয়ারাবাজার উপজেলা আ.লীগ নেতা বরুন দাস প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সবিবুর রহমান, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শমসের আলি, আবু সায়েম শফিউল ইসলাম, খালিদ হাসান। সমাবেশে বিভিন্ন এলাকা থেকে এবং উপজেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি তাজির উদ্দিনের নেতৃত্বে নৌকার সমর্থনে দলীয় নেতাকর্মীরা সমাবেশে উপস্থিত হন।