জগন্নাথপুরে ভিড় বেড়েছে গরম কাপড়ের দোকানে


জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:
তাই ধীরে ধীরে নিচে নামছে তাপমাত্রা। ঠান্ডা ঠান্ডা ভাব জানান দিচ্ছে শীত চলে এসেছে। রাত বাড়ার পর থেকেই শীত অনুভূত হলেও ভোরের দিকে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। কুয়াশায় মোড়ানো রাত, শিশির ভেজা সকাল ও হালকা ঠান্ডার কারণে স্থানীয় গরম কাপড়ের দোকানে ভিড় বেড়েছে। সরেজমিনে জগন্নাথপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজারের গিয়ে দেখা যায়, জমে উঠেছে ফুটপাতের ভ্রাম্যমাণ শীত বস্ত্রের দোকানগুলো। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত ওই সব কাপড়ের দোকানে গরম কাপড় কিনতে ভিড় করছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। উপজেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র পৌর শহরের বিভিন্ন মার্কেটে করে বাহারি রঙের এসব শীত বস্ত্র বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। রানীগঞ্জ বাজারের রহমান ফ্যাশনের হাসান রহমান জানান, কয়েকদিন ধরেই প্রায় সব দোকানে কম-বেশি শীতের কাপড় কেনাকাটা ভাল হয়েছে। ক্রেতাদের চাহিদার কথা ভেবে ছোট-বড়দের জ্যাকেট, মাফলার, সোয়েটার, হাত মোজা, কোট, টুপি ও মাংকি টুপিসহ সব ধরনের শীত বস্ত্র মিলছে এসব দোকানে। জগন্নাথপুরের বাজারের রাস্তার দুইধারে বসা দোকানগুলোতে গরম কাপড় কেনাবেচায় ব্যস্ত সময় পার করছেন দোকানি ও ক্রেতারা। প্রতি বছর শীত মৌসুম এলেই তাদের বিক্রি বেড়ে যায়। কয়েকদিন ধরে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় সাধ্যের মধ্যে পছন্দের পোশাক কিনতে ফুটপাতের দোকানগুলোতে ভিড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা। এক প্রশ্নের জবাবে ওই বাজারের ফেরিওয়ালা সুজন মিয়া জানান, উলের সোয়েটারের দাম পড়ছে ১৫০ থেকে ২৫০ টাকা। জ্যাকেট ২০০ থেকে সাড়ে ৩০০ টাকা, ফুলহাতা গেঞ্জি ও বাচ্চাদের জামাসেট ৬০-১৩০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। শীতের পোশাক কিনতে আসা পৌর শহরের শুভ আহমদ বলেন, অনেক খোঁজ করে ছেলে-মেয়ে ও পরিবারের সবার জন্য সোয়েটারসহ কয়েকটি শীতের কাপড় কিনেছি। নিজের জন্য একটি উলের সোয়েটার কিনেছি। শীত বেশি পড়ায় দোকানিরা দামও বেশি চাচ্ছে। অনেক দর দামের পর তিনটি ট্রাউজার কিনেছি সাড়ে ৩০০ টাকায়। শাশুড়ির জন্য একটি সোয়েটার কিনেছি ১২৬ টাকায়। অন্য সময় এগুলো ৬০-৭০ টাকায় পাওয়া যেতো বলে জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, কম দামে ভাল কাপড় পাওয়া যায় ফুটপাতে। তাই আমাদের শেষ ভরসা ফুটপাত। এদিকে, ফুটপাতের দোকানি জমশেদ আলী জানান, তিন দিন ধরে বেচাকেনা বেশি হচ্ছে। সবাই ছোট সোনামনিদের জন্য বেশি কাপড় কিনছে। পাশাপাশি উলের সোয়েটার, মাফলার ও গরম কাপড়ের টুপিসহ অন্যান্য কাপড়ও ভালো বেচাকেনা হচ্ছে।